Advertisement

ভালোবাসার বিড়ম্বনা

মোঃ আবুল কালাম.

ষ্টাফ রির্পোটারঃ    |    ১৯:৪৪, ফেব্রুয়ারী ২৯, ২০২০   |    112




ভালোবাসার বিড়ম্বনা

                                           মোঃ আবুল কালাম.
শৈশব থেকেই ফুল বা ফুল গাছের প্রতি দুর্বলতা আমার।বয়সের সাথে সাথে সেটা ক্রমেই বেড়ে চলছিল।সবুজের প্রতি ভালোবাসাটা ছিল অগাধ। দুর্ভাগ্য আমার ধৈর্য্য এতই   কম ছিলো যে,বীজ হতে চারা করে কিংবা ছোট চারা লালনপালন করে ফুল দেখার আশা করতে পারতাম না। তাই যখনি নার্সারিতে ফুলে ভরা কোন গাছ দেখতে পেতাম, যেভাবেই হোক এটা নিজের করে নেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টায় থাকতাম।বাসায় এনে টবে বা মাটিতে পুঁতে দিতাম আর সেই ফুলগুলি ঝরে যাবার পরপরই গাছটা মরে যেত।অনেক সময় আর ফুল দিতো না বলে আর যতœ নেওয়াও হতো না। এভাবেই চলছিল।
বছর দেড়েক আগে একজন সফল বাগানীর সান্নিধ্যে ছাদ বাগান করা শুরু করি। উদ্ভিদ বিদ্যা নিয়ে লেখাপড়া করেছে বলে উনি এই ব্যাপারে খুবই পারদর্শী। মাটি তৈরি কিভাবে করবো বলে দিলেন। কিন্তু এত্ত ঝামেলায় আমি নাই।পরে চুয়াডাংগা থেকে জৈব মাটি আর সার আনিয়ে শুরু করে দিলাম। উনার আন্তরিক চেষ্টা আর পরামর্শে কিছু গাছ লাগিয়ে আমি নিজেই অবাক!  আমার হাতে যে এত তাড়াতাড়ি গাছগুলি বেড়ে উঠবে কল্পনাও করিনি।
প্রথম গোলাপ গাছে একটা কলি আসল, আমার ঘুম হারাম।চোখের আড়াল কি তাকে আর করা যায়!! একদিন দুপুরে দেখি কলিটা নাই, মনে হচ্ছে গোড়া থেকে কেটে ফেলেছে। রাগে, অপমানে বাসায় নাওয়া খাওয়া বন্ধ করে দিলাম। আমার সখের একটি গাছের খেয়াল যে পরিবার রাখতে পারে না সে পরিবারে আমার অস্তিত্ব মেনে নিতে পারছিলাম না। কস্ট শেয়ার করলাম বাগানীর সাথে, উনিতো হেসেই খুন! বললেন,এতে কস্ট বা টেনশানের কিচ্ছু নেই। প্রথম কলিটা কেটে ফেলেছে ভালোই হয়েছে। এখন আপনার গাছ আরো পরিপুর্ণ হয়ে আরো বেশি করে কলি আসবে, ধৈর্য্য ধরুন। তার আশ্বাসে বিশ্বাস রাখলাম। ঠিক কিছুদিন পরে দেখলাম সত্যি তো! অই ডালের দুই পাশে দুইটা ডাল বের হয়ে চারটা কলির জন্ম নিল। উফ্!!! যেন বাঁধভাংগা আনন্দের ঢেউ বুকে। ফুলে ফুলে ভরে যাচ্ছে আমার বাগান।আরো উৎসাহ জাগলো মনে।এই বুঝি স্বপ্নের সিঁড়ির দেখা পেলাম!!!
গাছগুলোর পাতা ফুলে ভরে যাচ্ছে আর পানি দিচ্ছি শুধু মাত্র দিনে একবার....কেমন জানি অমানবিক মনে হল। তাই মাটি একটু শুকনা দেখলেই পানি ঢেলে দেই টবে।কিছুদিন পর দেখলাম, গাছগুলি আধমরা হয়ে উঠছে। আহারে, বুকটা আবার কেঁপে উঠল। পরামর্শ চাইলাম বাগানীর। পানির কথা খুলে বললাম উনার কাছে। তিনিতো রেগেই আগুন! আমি নাকি বেশি পানি দিয়ে গাছের গোড়া পচিয়ে ফেলেছি! হায় আল­াহ এ কেমন কথা!! বাঁচার জন্য বেশি বেশি পানি খাওয়ালাম আর তাতেই এদের সর্বনাশ করলাম। যাই হোক, পানি দেওয়াটা শিখলাম। বৃক্ষমেলায় গেলাম দুজন একসাথে। উনি আমাকে দেখে দেখে ফুল আর ফলের অনেক গাছ কিনে দিলেন আর সার হিসেবে নিলাম ট্যাবলেট সার। দোকানী বল­, এই সার দিলে আর ছয় মাস কোন প্রকার সার দিতে হবে না। বাগানের সব গাছ হিসেব করে প্রয়োজন মতো কিনে নিলাম। এসেই সব টবে গুজে দিলাম। কিছুদিন যেতে না যেতেই আমার পুরো বাগান হয়ে উঠল আমার একটা স্বপ্নের পৃথিবী। গোলাপ,জবা,হাসনাহেনা,বেলি,গন্ধরাজ, পেয়ারা, বরই কি নেই বাগান জুড়ে!! নিজের জীবনটাকেই সফল ভাবতে আর কোন সন্দেহ নেই।বাড়িতে কোন মেহমান এলে আমার বাগান দেখে ভূয়সী প্রশংসা করতো।আতœীয় স্বজনদের মাঝেও ছড়িয়ে পড়লো আমার বাগানের কথা।
 হঠাৎ চিন্তা করলাম এরা এই অল্প কয়দিনেই আমাকে এত ফল আর ফুল দিল, সেই তুলনায় মাত্র এ কয়েকটা ট্যাবলেট সার! আহারে বোবা জীব, যদি কথা বলতে পারতো তাহলে কত কিছুই না খেতে চাইত! তাই একদিন দোকানে গিয়ে রাসায়নিক সার লাল, কালো আর সাদা মিক্স করে নিয়ে আসলাম। কি পরিমান দিবো আমাকে বলে দিয়েছিলো নার্সারিওয়ালা। কিন্তু তার কথায় কেমন জানি তাকে কিপ্টে মনে হলো। তাই বাসায় এসে একেবারে ইচ্ছেমতো বেশি বেশি করে করে সব গাছের গোড়ায় দিয়ে দিলাম।কারন এ গাছগুলির প্রতি আমার ভালোবাসায় কোন কার্পণ্য নেই। আমার বাগানীকে জানানোর সুযোগ পাইনি কারন উনি তখন চিকিৎসার জন্য ইন্ডিয়ায় অবস্থান করছিলেন আর উনার সাথে যোগাযোগের কোন উপায় ছিল না।
আমি জানতাম না, আমার এই অগাধ ভালোবাসা আমার বাগানের কাল হয়ে উঠবে। এখন আমার প্রায় গাছ মৃত্যু পথের যাত্রী। মনে হচ্ছে আমার মতো খুনি সারা পৃথিবী জুড়ে নেই। তাই সবার কাছে অনুরোধ মাত্রাতিরিক্ত কোন কিছুই ভালো নয়।জীবনের চলার পথে প্রতিটা বিষয়ই সবকিছু পরিমান মতোই ভালো।আর গাছের ক্ষেত্রে  রাসায়নিক সার ব্যবহার করতে যথেস্ট সাবধানতার প্রয়োজন।
 ইনশা'হ আল­াহ আপনাদের সহযোগীতা আর ভালোবাসায় আমি আবার আমার স্বপ্নের পৃথিবী সাজাবো। আর অপরাজিতা পরিবারের মতো নিঃস্বার্থ সবুজ ভালোবাসার মানুষগুলি পাশে থাকলে অসম্ভব বলে কিছু থাকে না। তাই তো হৃদয়ের গভীর হতে বলে উঠি বার বার....
"সবুজেই সুখ, সবুজেই হাসি-সবুজে সাজুক বিশ্ববাসী।"

 



Advertisement

রিলেটেড নিউজ

শিক্ষিত কবি আজ রিক্সা চালক

১০:২৫, জুলাই ১৯, ২০২০

শিক্ষিত কবি আজ রিক্সা চালক


 স্বপ্ন ছলোনাময়ী

২২:৪৫, মে ১২, ২০২০

স্বপ্ন ছলোনাময়ী


২৩:৪৭, মে ২, ২০২০

"কৃষিই বাঁচাতে পারে বাংলাদেশকে"-ড. মীজানুর রহমান


 যৌন আকর্ষণ কী

২২:৩৮, এপ্রিল ১৭, ২০২০

যৌন আকর্ষণ কী


 দেশ পরিচিতিঃ- বুলগেরিয়া!

২০:৩৯, এপ্রিল ২, ২০২০

দেশ পরিচিতিঃ- বুলগেরিয়া!


মানুষ মানুষের শত্রু হয় জ্ঞানীর কর্ম শত্রুতা নয়

১৮:২৮, মার্চ ২৩, ২০২০

মানুষ মানুষের শত্রু হয় জ্ঞানীর কর্ম শত্রুতা নয়


বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক মানস অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান

১৭:৩৯, মার্চ ১৮, ২০২০

বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক মানস অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান


Advertisement
Advertisement

আরও পড়ুন

আফগানিস্তানের কারাগারে হামলায় নিহত ২১

১৭:৪৭, আগস্ট ৩, ২০২০

আফগানিস্তানের কারাগারে হামলায় নিহত ২১


রোগ প্রতিরোধশক্তি, কয়েক মিনিটে বানান

১৫:৪১, আগস্ট ৩, ২০২০

রোগ প্রতিরোধশক্তি, কয়েক মিনিটে বানান


 ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জিতলেন ইমোবিলে

১৫:৩২, আগস্ট ৩, ২০২০

ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জিতলেন ইমোবিলে


চা-কাকুকে উপহার পাঠালেন মিমি?

১৫:২৩, আগস্ট ৩, ২০২০

চা-কাকুকে উপহার পাঠালেন মিমি?