image

টাঙ্গাইলে অতিথি পাখির কলরব

image

জাহাঙ্গীর আলম, টাঙ্গাইল:

প্রতিবছর শীতকাল এলেই জলাশয়, বিল, হাওড়, পুকুর ভরে যায় নানা রঙের নাম না জানা পাখিতে। আদর করে আমরা সেগুলোকে বলি অতিথি পাখি। নাম অতিথি হলেও এই পাখিরা ঝাঁকে ঝাঁকে আমাদের দেশে হাজির হয় নিজেদের জীবন বাঁচাতে। প্রকৃতির অপার লীলায় প্রতি বছর টাঙ্গাইলের বিভিন্ন স্থানে এসে ভীর করে শীত প্রধান দেশের এসব পাখি।

পৃথিবীতে প্রায় ৫ লাখ প্রজাতির পাখি আছে। এসব পাখিদের মধ্যে অনেক প্রজাতিই বছরের একটি নির্দিষ্ট সময় অন্য দেশে চলে যায়। শুধু ইউরোপ আর এশিয়ায় আছে প্রায় ৬০০ প্রজাতির পাখি। কিছু কিছু পাখি তাই প্রতিবছর ২২ হাজার মাইল পথ অনায়াসে পাড়ি দিয়ে চলে যায় দূর দেশে। উত্তর মেরু অঞ্চলের এক জাতীয় সামুদ্রিক শঙ্খচিল প্রতিবছর এই দূরত্ব অতিক্রম করে দক্ষিণ দিকে চলে আসে। আমাদের দেশে অতিথি পাখিরা অতটা পথ পাড়ি না দিলেও তারাও অনেক দূর থেকেই আসে। বরফ শুভ্র হিমালয় এবং হিমালয়ের ওপাশ থেকেই আমাদের দেশে বেশির ভাগ অতিথি পাখির আগমন ঘটে।

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল শহরের অদূরেই ধলাপাড়ার চাপড়া বিলে আসতে শুরু করেছে অতিথি পাখিরা। ঝাঁকে ঝাঁকে পাখিদের কিচিরমিচির শব্দে মুখরিত হয়ে উঠেছে চাপড়া বিল। দর্শনার্থীরাও ভিড় করছেন এই পাখিদের দেখতে। দিনের ক্লান্তি শেষে কাজের ফাঁকে অনেকেই ঘুরতে আসছে ঘাটাইলের চাপড়া বিলে।

বৈরি পরিবেশ থেকে টিকে থাকার জন্য হাজার হাজার কিলোমিটার দূর থেকে ঘুরতে আসে এই অতিথি পাখিরা। ঘাটাইলের বেশ কিছু জায়গায় অতিথি পাখির আগমনে কলকল শব্দে ভরে উঠে জলাশয়গুলো।

ঘাটাইলের চাপড়া বিল এবং নেদার বিল নামক দুটি বড় জলাশয়ে প্রতি বছর কয়েকশ অতিথি পাখি আসতে দেখা যায়। এসব পাখিদের কিচিরমিচির শব্দে ঝাঁক বেঁধে এক সঙ্গে আকাশে উড়ার দৃশ্য বিমোহিত করে দর্শনার্থীদের।

তবে গতবারের তুলনায় এবার অতিথি পাখির আগমন কম। কারণ হিসেবে দর্শনার্থীরা জানান, এ বিলে মানুষের আনাগোনা অনেক বেশি। তার ওপর এখানে ভাড়ায় চালিত শ্যালো মেশিন চলার কারণে পাখিরা ভয়ে আসতে চায় না।

সরেজমিনে চাপড়াবিল এবং নেদারবিলে গিয়ে চোখে পড়ে এমনই দৃশ্য। প্রায় বেশিরভাগ জায়গায় ধান চাষের জন্য জমি তৈরি করছেন স্থানীয় কৃষকরা। পাখিগুলো বসার জন্য তেমন কোন সুযোগ না পাওয়ায় এক স্থান থেকে অন্য স্থানে উড়ে বেড়াচ্ছে।

চাপরা বিলে ঘুরতে আসা দর্শনার্থী সাজিদুল হাসান সিহাব এবং সুজন বলেন, ‘আমরা প্রতি বছর এখানে বেশ কয়েকবার ঘুরতে আসি। বিশেষ করে শীতের সময়টা অনেক ভালো লাগে। অতিথি পাখিরা আসে, তাদের কিচিরমিচির শব্দ একটা সুরের পরিবেশ সৃষ্টি করে। তবে এবার গত কয়েক বছরের তুলনায় একটু কম পাখি দেখা যাচ্ছে।’

জহিরুল ইসলাম নামের স্থানীয় একজন জানান, ‘আমাদের এখানে গত কয়েক বছর ধরে অনেক অতিথি পাখি আসে। আমরা পাখিগুলোকে কোনো রকম বিরক্ত করি না। এ গুলো বিলে থাকলে দেখতেও ভালো লাগে।’

এ বিষয়ে ঘাটাইল উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মান্নান মিয়া বলেন, আসলে অতিথি পাখিরা শীতের সময় অনেক দূরদূরান্ত থেকে আসে। প্রতি বছর তারা ঘাটাইলের বিভিন্ন ছোট বড় জলাশয়ে বিশেষ করে ধলাপাড়ার নেদার বিল এবং চাপড়া বিলে আসে এটা আমরা দেখেছি। তবে শ্যালো মেশিনের শব্দে খুব একটা প্রভাব ফেলবে বলে মনে হয় না।

তিনি আরও বলেন, তবে বেশি শব্দ হলে পাখিরা ভয়ে নাও আসতে পারে। অতিথি পাখিরা যেখানে তাদের খাবারের সুবিধা বেশি পাবে, নিরাপদ আশ্রয়স্থল পাবে সেখানেই যাবে।
আমাদের উচিত পাখিগুলোকে কোন প্রকার অত্যাচার না করে নিরাপদ পরিবেশ তৈরী করে দেওয়া।